রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৬:৪৮ অপরাহ্ন
Logo
সংবাদ শিরোনাম ::
প্যারিস জলবায়ু চুক্তিতে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করতে সম্মত বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র যুক্তরাষ্ট্রে জনসন এন্ড জনসনের কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন অনুমোদন কোভিড মোকাবিলায় বাংলাদেশের প্রচেষ্টার ভূয়সী প্রশংসা করলেন জাতিসংঘ মহাসচিব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামীকাল শনিবার প্রেস কনফারেন্সে বক্তব্য রাখবেন সৌদি সাংবাদিক খাসোগি হত্যার বিষয়ে গোয়েন্দা প্রতিবেদন দেখেছেন বাইডেন ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী মনোনয়নে তৃণমূলের রেজুলেশন কেন্দ্রে পাঠানোর নির্দেশ কঙ্গোতে অতর্কিত হামলায় নিহত রাষ্ট্রদূতের লাশ ইতালি পৌঁছেছে প্রখ্যাত সাংবাদিক সৈয়দ আবুল মকসুদ আর নেই ইসলামাবাদে বাংলাদেশ হাইকমিশনে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত যুক্তরাষ্ট্রে এ পর্যন্ত করোনায় মারা গেছে ৫ লাখ মানুষ

রাজবাড়ীর রামকান্তপুরে এক সৌদি প্রবাসীর বাড়ীতে অর্ধশত মৌচাক

  • আপডেট সময় সোমবার, ২১ ডিসেম্বর, ২০২০

॥শিহাবুর রহমান॥ রাজবাড়ী সদর উপজেলার রামকান্তপুর ইউনিয়নের কানাডা বাজার এলাকায় এক প্রবাসীর বাড়ীতে বসেছে অর্ধ শতাধিক মৌচাক। গত ৪বছর ধরে রহস্যজনক ভাবে শীত মৌসুমে মৌমাছিরা ওই বাড়ীতে এসে মৌচাক তৈরী করে মধু আহরণ করছে।
পুরো বছর ধরেই কম বেশী মৌচাক থাকে ওই বাড়ীতে। অলৌকিকভাবে আসা এসব মৌচাক থেকে সংগ্রহকৃত মধু বিক্রির টাকা নিজে ভোগ না করে গরীব মানুষের মধ্যে বন্টন করে থাকেন ওই প্রবাসী।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, দুইতলা বিশিষ্ট ওই বাড়ীর চারপাশ দিয়ে মৌমাছিরা চাক করে বসে আছে। বাথরুমের পাইপের সাথেও চাক তৈরী করে আছে মৌমাছিরা। বাড়ীতে এতো মৌচাক থাকা সত্বেও কাউকে কামড়ায় না এসব মৌমাছি।
বাড়ীর মালিক মোঃ সেকেন্দার জানান, তিনি দীর্ঘদিন ধরে সৌদি আরবে ছিলেন। ৪বছর আগে সৌদি আরবে থাকা অবস্থাতেই জানতে পারেন তার বাড়ীতে মৌমাছি এসে মৌচাক তৈরী করে থাকছে। সারা বছর ৪ থেকে ৫টি মৌচাক থাকে। কিন্তু শীত এলেই ঝাঁকে ঝাঁকে মৌমাছি এসে তার বাড়ীতে মৌচাক তৈরী করে। গত বছর এই শীত মৌসুমে ৩০টি মৌচাক ছিল। এবার আরো বেড়েছে। বর্তমানে ৪০টি মৌচাক রয়েছে। এর সংখ্যা ৫০ ছাড়িয়ে যাবে।
তিনি আরো বলেন, এসব মৌচাক থেকে সংগ্রহকৃত মধু বিক্রি করে তিনি যে টাকা পান তা দিয়ে গরীব মানুষের মধ্যে কাপড় চোপড় এবং গরীব ছাত্র-ছাত্রীদের লেখাপড়ার খরচ দেন। তিনি নিজে একটি টাকাও ভোগ করেন না।
শরীফ বিশ^াস নামে এক মৌয়াল জানান, ওই বাড়ীর মৌচাক থেকে তিনি যে মধু সংগ্রহ করেন তার অর্ধেকটা বাড়ীর মালিককে দেন। গত বছর তিনি ওই বাড়ীর মৌচাক থেকে মধু সংগ্রহ করে দেড় লক্ষ টাকা বিক্রি করেছিলেন। এবার মুধ বিক্রি করে এর চেয়েও বেশি টাকা পাওয়া যাবে আশা করা হচ্ছে।
স্থানীয়রা জানান, অলৌকিকভাবে গত ৪বছর ধরে প্রবাসী সেকেন্দারের বাড়ীতে মৌমাছিরা এসে মৌচাক তৈরী করছে। কোথা থেকে যে এই মৌমাছি আসে তা কেউ বলতে পারেন না। তবে এই মৌচাক থেকে সংগ্রহকৃত মধু বিক্রির টাকা নিজে ভোগ না করে গরীবদের মধ্যে বন্টন করে দেন প্রবাসী সেকেন্দার।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
error: আপনি নিউজ চুরি করছেন, চুরি করতে পারবেন না !!!!!!