শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ০২:১৩ অপরাহ্ন
Logo
সংবাদ শিরোনাম ::
হোমিও ডাক্তার কাজী ইমাম আজমের বিরুদ্ধে রাজবাড়ী থানায় র‌্যাবের মামলা কোভিড-১৯ মোকাবেলায় আরো সহযোগিতার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর বিশ্বব্যাপী করোনায় মৃতের সংখ্যা ১৫ লাখ ছাড়িয়েছে বাংলাদেশ ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের নৃশংসতা ভুলতে পারে না : প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে বাংলাদেশের উত্থাপিত শান্তির সংস্কৃতি রেজুলেশন গৃহীত রাজবাড়ী থানা পুলিশের অভিযানে সাজাপ্রাপ্ত আসামীসহ ২জন গ্রেপ্তার রোহিঙ্গাদের ভাষানচরে স্বেচ্ছায় স্থানান্তরের আহ্বান জাতিসংঘের যুক্তরাষ্ট্রে ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আড়াই হাজার মানুষের মৃত্যু জাপানের বাসিন্দারা বিনামূল্যে পাবেন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন অভিবাসীদের অধিকার নিশ্চিত করতে রাজনৈতিক সদিচ্ছা প্রয়োজন –রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা

মানব পাচার রোধে বাংলাদেশ জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে : রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা

  • আপডেট সময় শুক্রবার, ৩১ জুলাই, ২০২০

॥নিউইয়র্ক প্রতিনিধি॥ জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা বলেছেন, মানব পাচারের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ‘জিরো টলারেন্স নীতি’ বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে।

বিশ্ব মানব পাচার বিরোধী দিবস উদযাপন উপলক্ষে গত ৩০শে জুলাই যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে উচ্চ পর্যায়ের ভার্চুয়াল প্যানেল আলোচনায় বক্তব্য প্রদানকালে তিনি এ কথা বলেন। মানব পাচার রোধে বহুমাত্রিকতার প্রেক্ষাপটে ‘প্রিভেনশন, প্রমোশন, প্রটেকশন ও পার্টনারশীপ’-এই ফোর ‘পি’ ধারণ করে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থা, আইনী সম্প্রদায়, সুশীল সমাজ, এনজিও এবং বিশেষ করে স্থানীয় কমিউনিটিসহ সকল অংশীজনদের সাথে নিয়ে এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বাংলাদেশ যেভাবে কাজ করে যাচ্ছে তা তুলে ধরেন তিনি। মানব পাচারের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ ব্যাপক ভিত্তিক যে সকল আইনী ও প্রাতিষ্ঠানিক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে প্রদত্ত বক্তব্যে তাও উল্লেখ করেন বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি। এই ঘৃণ্য অপরাধ প্রতিরোধে যারা সামনের সারিতে থেকে কাজ করছেন এবং যারা সর্বপ্রথম সাড়া দিচ্ছেন বিশেষ করে এই বৈশ্বিক মহামারীর মধ্যে, তাদের তাৎপর্যপূর্ণ এ অবদানের ভূয়সী প্রশংসা করেন রাষ্ট্র্রদূত ফাতিমা। মানব পাচার বিরোধী গ্রুপ অব ফ্রেন্ডস এবং জাতিসংঘের ড্রাগস ও ক্রাইম বিষয়ক কার্যালয় (ইউএনওডিসি)’র যৌথ উদ্যোগে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশ উক্ত মানব পাচার বিরোধী গ্রুপ অব ফ্রেন্ডস-এর সদস্য। ইভেন্টটির এবারের প্রতিপাদ্য ছিল- ‘সাড়াদানকারীদের স্বীকৃতি-প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত এবং মানব পাচার রোধে তাদের ভূমিকা তুলে ধরা (RECOGNIZING RESPONSE–COMMITTED TO THE CAUSE: HIGHLIGHTING THE ROLE OF RESPONDERS TO TRAFFICKING)’।

মানব পাচারের আন্তঃ সীমান্ত ও আন্তঃ দেশীয় প্রকৃতি ও ব্যাপ্তিকে আমলে নিয়ে স্থানীয়, দ্বি-পাক্ষিক, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক অংশীদারীত্বের প্রয়োজনীয়তার উপর গুরুত্বারোপ করেন রাষ্ট্রদূত ফাতিমা। মানব পাচারের বিষয়টি সামগ্রিকভাবে দেখা এবং এর মূল কারণসমূহ চিহ্নিত করাসহ এ সমস্যা সমাধানে বেশ কিছু সুনির্দিষ্ট সুপারিশ তুলে ধরেন তিনি। এগুলো হলো ঃ দ্বি-পাক্ষিক, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক কার্যক্রম এবং সহযোগিতাসমূহ জোরদার; সংশ্লিষ্ট জাতীয় আইনসমূহ কার্যকর; ইনটিলিজেন্স ও তথ্য বিনিময় ব্যবস্থার উন্নয়ন; মানব পাচার সংশ্লিষ্ট অপরাধের প্রতিরোধ ও মনিটরিং এর জন্য ডিজিটাল সার্ভিলেন্স ও আইসিটির ব্যবহার এবং এ বিষয়ে সক্ষমতা বিনির্মাণ। মানব পাচার বিষয়ে আইওএম, ইউএনওডিসি ও ইন্টারপোলসহ অন্যান্য আন্তর্জাতিক সংস্থার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকারও প্রশংসা করেন রাষ্ট্রদূত ফাতিমা।

নিরাপদ, নিয়মতান্ত্রিক ও নিয়মিত অভিবাসনের ইতিবাচক দিকসমূহের কথা তুলে ধরে তিনি আরও বলেন, মানব পাচারের নেতিবাচক প্রভাব রুখতে এটি হতে পারে টেকসই বিকল্প। মানব পাচারের বিরুদ্ধে কার্যকর পদক্ষেপ বাস্তবায়নে এ সংক্রান্ত প্রটোকল ও আন্তর্জাতিক কনভেনশনের সার্বজনীন গ্রহণযোগ্যতা এবং প্রয়োগ নিশ্চিতে আরও জোর প্রচেষ্টার আহ্বান জানান বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি।

ইভেন্টটির মডারেটর ছিলেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বেলারুশের স্থায়ী প্রতিনিধি। তিনি মানব পাচার বিরোধী গ্রুপ অব ফ্রেন্ডস জোটের পক্ষে বক্তব্য রাখেন। প্যানেলিস্টগণের মধ্যে ছিলেন ইউএনওডিসি’র নির্বাহী পরিচালক, যুক্তরাষ্ট্রের মানব পাচার প্রতিরোধ ও মনিটরিং বিষয়ক অ্যাম্বাসেডর অ্যাট লার্জ এবং বলিভিয়া, বেলজিয়াম ও মিশরের স্থায়ী প্রতিনিধিগণ। এছাড়াও ইউএন উইমেন এর উপ-নির্বাহী পরিচালক এবং ইউএনওডিসি’র গ্লোবাল ফ্লাইট এগইনিস্ট হিউম্যান ট্রাফিকিং বিষয়ক শুভেচ্ছা দূত বক্তব্য রাখেন।

জাতিসংঘের উচ্চ পর্যায়ের এই ইভেন্টটিতে সদস্য দেশসমূহের স্থায়ী প্রতিনিধি, ইউরোপীয় কাউন্সিলের প্রতিনিধি এবং এনজিও ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিগণ বক্তব্য প্রদান করেন। অনুষ্ঠানটিতে মানব পাচারের শিকার একজন নারী তার ভয়াবহ অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেন। এ ধরনের ভার্চুয়াল ইভেন্টে বিপুল সংখ্যক উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিবর্গের অংশগ্রহণ বিশেষ তাৎপর্য বহন করে। বক্তাগণ কোভিড-১৯ মোকাবিলা ও উত্তরণ প্রচেষ্টায় মানবপাচার প্রতিরোধ বিষয়টিকে সন্নিবেশনের আহ্বান জানান এবং এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষের মধ্যে আরও অধিক সমন্বয় ও ব্যাপকভিত্তিক প্রচেষ্টা গ্রহণের উপর জোর দেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
error: আপনি নিউজ চুরি করছেন, চুরি করতে পারবেন না !!!!!!