রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৭:৪৯ অপরাহ্ন
Logo
সংবাদ শিরোনাম ::
প্যারিস জলবায়ু চুক্তিতে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করতে সম্মত বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র যুক্তরাষ্ট্রে জনসন এন্ড জনসনের কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন অনুমোদন কোভিড মোকাবিলায় বাংলাদেশের প্রচেষ্টার ভূয়সী প্রশংসা করলেন জাতিসংঘ মহাসচিব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামীকাল শনিবার প্রেস কনফারেন্সে বক্তব্য রাখবেন সৌদি সাংবাদিক খাসোগি হত্যার বিষয়ে গোয়েন্দা প্রতিবেদন দেখেছেন বাইডেন ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী মনোনয়নে তৃণমূলের রেজুলেশন কেন্দ্রে পাঠানোর নির্দেশ কঙ্গোতে অতর্কিত হামলায় নিহত রাষ্ট্রদূতের লাশ ইতালি পৌঁছেছে প্রখ্যাত সাংবাদিক সৈয়দ আবুল মকসুদ আর নেই ইসলামাবাদে বাংলাদেশ হাইকমিশনে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত যুক্তরাষ্ট্রে এ পর্যন্ত করোনায় মারা গেছে ৫ লাখ মানুষ

রাজবাড়ী হানাদার মুক্ত দিবস আজ॥বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামে স্মৃতি স্তম্ভ করার দাবী

  • আপডেট সময় শুক্রবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০২০

॥শিহাবুর রহমান॥ আজ ১৮ই ডিসেম্বর রাজবাড়ী হানাদার মুক্ত দিবস। সারাদেশ যখন বিজয়ের আনন্দে ভাসছে তখনও রাজবাড়ীতে চলে বিহারী, পাকবাহিনী ও রাজাকারদের সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের তুমুল যুদ্ধ। এ কারণেই সারাদেশ ১৬ই ডিসেম্বর স্বাধীন হলেও রাজবাড়ী হানাদার মুক্ত হয় ১৮ই ডিসেম্বর দুপুরে। পরে মুক্তিযোদ্ধারা বিজয় উল্লাস করেন। তবে যাদের অবদানে রাজবাড়ী শত্রু মুক্ত হয় সেই সব মুক্তিযোদ্ধাদের নামে নেই কোন স্মৃতিস্তম্ভ বা কোন প্রতিষ্ঠান।
রাজবাড়ীর মুক্তিযুদ্ধকালীন কমান্ডার ডাঃ কামরুল হাসান লালী জানান, ব্রিটিশ আমল থেকেই রাজবাড়ী রেলওয়ে শহর হিসেবে পরিচিত ছিল। রেলওয়ের শহরের সুবাদে এখানে ১৫ থেকে ২০ হাজারের মতো বিহারী বসবাস করতো। তাদের বসবাস ছিল শহরের নিউ কলোনী, আঠাশ কলোনী, স্টেশন কলোনী ও লোকোশেড এলাকায়। এমনিতে রাজবাড়ীতে বিহারীদের প্রচন্ড প্রভাব ছিল। এরপর আবার আশেপাশের এলাকা থেকেও বিহারী এসে এখানে ঘাঁটি করে। এতে তাদের শক্তি আরো বেড়ে যায়। তারা ঘোষণা দেয় সারাদেশ পাকিস্তানমুক্ত হলেও রাজবাড়ী থাকবে তাদের দখলে। তখন তারা বিভিন্ন স্থানে জ্বালাও পোড়াও এবং হত্যাযজ্ঞে লিপ্ত হয়। এ সময় ১৬ই ডিসেম্বর থেকে ১৮ই ডিসেম্বর পর্যন্ত স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা তাদের সাথে সম্মুখ যুদ্ধ হয়। এ সম্মুখ যুদ্ধে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে মাগুরা জেলা থেকেও মুক্তিযোদ্ধারা অংশ নিলে তারা পরাজয় বরণ করে। ফলে স্বাধীনতার দুইদিন পর রাজবাড়ী হানাদার মুক্ত হয়। এ যুদ্ধে রফিক, সফিক, সাদীসহ আরো অনেকে শহীদ হয়। আহত অনেক মুক্তিযোদ্ধা।
বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তার জানান, মুক্তিযুদ্ধে রাজবাড়ীতে কামরুল হাসান লালীর বড় বাহিনী ছিল এবং শক্তিশালী ছিল। তার নেতৃত্বে অনেক মুক্তিযোদ্ধা এ যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। মুক্তিযুদ্ধে তিনিসহ যাদের অবদান সবচেয়ে বেশি ছিল তাদের নামে রাজবাড়ীতে কোন স্মৃতিস্তম্ভ বা কোন প্রতিষ্ঠান নেই। তাই এসব মুক্তিযোদ্ধাদের নামে স্মৃতিস্তম্ভ বা প্রতিষ্ঠান করার দাবী জানান এ মুক্তিযোদ্ধা।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
error: আপনি নিউজ চুরি করছেন, চুরি করতে পারবেন না !!!!!!