রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:১৫ অপরাহ্ন
Logo
সংবাদ শিরোনাম ::
বিশ্বব্যাপী ওমিক্রন সংক্রমণ বৃদ্ধিতে আইসোলেশন মেয়াদ অর্ধেক করার ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ওমিক্রন ভেরিয়েন্ট ডেল্টা ও বিটার তুলনায় তিন গুণের বেশী পুনঃ সংক্রমন ঘটাতে পারে : গবেষণা প্রতিবেদন জাতিসংঘ ভবনের বাইরে এক বন্দুকধারী গ্রেফতার শান্তি চুক্তির পঞ্চম বার্ষিকী উপলক্ষে কলম্বিয়া সফর জাতিসংঘ মহাসচিব সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে তিন বাহিনীর প্রধানগণের সাক্ষাৎ করোনা ভাইরাসের সংক্রমন বেড়ে যাওয়ায় অস্ট্রিয়ায় লকডাউন করোনা সংক্রমণ বাড়ায় ইউরোপের বিভিন্ন দেশে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ ভারতে নতুন করে ১০ হাজার ৩০২ জন করোনায় আক্রান্ত নভেম্বর মাসজুড়ে করাঞ্চলে কর মেলার সেবা পাবেন করদাতারা ঔপনিবেশিক আমলের ফৌজদারী কার্যবিধি যুগোপযোগী হচ্ছে

রাজবাড়ীর দৌলতদিয়ায় মরা পদ্মা থেকে অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে বালু তুলে বিক্রির অভিযোগ

  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই, ২০২০

॥আবুল হোসেন॥ রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ায় মরা পদ্মা নদীর ক্যানেল ঘাট থেকে দেবগ্রাম ইউনিয়নের অন্তার মোড় পর্যন্ত অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে বালু তুলে বিক্রি করছে একটি চক্র। এতে কয়েকটি গ্রামের ফসলী জমিসহ বাড়ী-ঘর ও অন্যান্য স্থাপনা ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে।

সরেজমিনে পরিদর্শন করে এবং ভুক্তভোগী মানুষের সাথে কথা বলে জানা গেছে, দৌলতদিয়া ইউনিয়নের বেপারী পাড়ার কাদের বেপারী, দেবগ্রাম ইউনিয়নের আতর আলী চেয়ারম্যানের পাড়ার মিজানুর রহমান মিনু(সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্যের স্বামী, ছোট ভাকলা ইউনিয়নের কাটাখালী গ্রামের মফিজ উদ্দিন মফি, জাহিদ হোসেন ও হিরা মিয়া প্রমুখ এই অবৈধ বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছে। মাঝে-মধ্যে পুলিশ  গিয়ে বন্ধ করে দিলেও ২/১ দিন পরই আবার তা শুরু হয়।

দেবগ্রাম ইউনিয়নের আতর আলী চেয়ারম্যানের বাজার এলাকার মাজেদা বেগম নদীতে জমি ও বাড়ী-ঘর হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে এখন রাস্তার পাশে সরকারী জমিতে ঘর তুলে থাকেন। এখন তার ওই ঘরের পাশ থেকেও ড্রেজিং করে করে মাটি কাটছে দেবগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের এক সংরক্ষিত মহিলা সদস্যের স্বামী মিজানুর রহমান মিনু। কেউ কিছু বললে প্রাণনাশের হুমকী দেয়াসহ বিভিন্নভাবে ভয়-ভীতি দেখায়। এ ব্যাপারে মাজেদা বেগম বলেন, এভাবে আমার ঘরের পাশ থেকে ড্রেজার দিয়ে মাটি কেটে নিতে থাকলে এই আশ্রয়টুকুও নদীর মধ্যে চলে যাবে। আমরা গরীব মানুষ, ভয়ে কিছু বলতে পারি না।

একই ইউনিয়নের তেনাপেচা নতুন গ্রামে মাটি কাটছে মফিজ উদ্দিন ও হিরা মিয়া। তারা পেশাদার বালু ব্যবসায়ী। নিজেদের কয়েকটি ড্রেজার মেশিন রয়েছে। সেগুলো দিয়ে প্রতিনিয়ত নদী থেকে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছে।

দৌলতদিয়া ইউনিয়নের ওমর আলী মোল্লার পাড়ার তোফাজ্জেল হোসেন বলেন, পদ্মা নদী শুকিয়ে এখানে চর জেগেছিল। আমরা ধান চাষ করে খেতাম। কিন্তু ড্রেজার দিয়ে মাটি-বালু তুলে বিক্রি করার কারণে এখন আর ধান চাষ করা যায় না। আবার ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। এভাবে মাটি কাটতে থাকলে আমাদের বাড়ী-ঘর নদীতে চলে যাবে। বার বার নিষেধ করা সত্ত্বেও কাদের বেপারী জোর করে মাটি-বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছে।

অভিযোগ অস্বীকার কাদের বেপারী বলেন, জমির মালিকদের নিকট থেকে হাজার(ঘনফুট) হিসেবে মাটি ক্রয় করে উত্তোলন করে বিক্রি করছি। এ ব্যাপারে আমার কাছে কেউ কোন অভিযোগ করে নাই।

গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আমিনুল ইসলাম বলেন, অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের কোন সুযোগ নাই। কেউ এটা করলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
error: আপনি নিউজ চুরি করছেন, চুরি করতে পারবেন না !!!!!!