শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ০২:৫৯ পূর্বাহ্ন
Logo
সংবাদ শিরোনাম ::
হোমিও ডাক্তার কাজী ইমাম আজমের বিরুদ্ধে রাজবাড়ী থানায় র‌্যাবের মামলা কোভিড-১৯ মোকাবেলায় আরো সহযোগিতার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর বিশ্বব্যাপী করোনায় মৃতের সংখ্যা ১৫ লাখ ছাড়িয়েছে বাংলাদেশ ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের নৃশংসতা ভুলতে পারে না : প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে বাংলাদেশের উত্থাপিত শান্তির সংস্কৃতি রেজুলেশন গৃহীত রাজবাড়ী থানা পুলিশের অভিযানে সাজাপ্রাপ্ত আসামীসহ ২জন গ্রেপ্তার রোহিঙ্গাদের ভাষানচরে স্বেচ্ছায় স্থানান্তরের আহ্বান জাতিসংঘের যুক্তরাষ্ট্রে ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আড়াই হাজার মানুষের মৃত্যু জাপানের বাসিন্দারা বিনামূল্যে পাবেন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন অভিবাসীদের অধিকার নিশ্চিত করতে রাজনৈতিক সদিচ্ছা প্রয়োজন –রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা

কিংবদন্তি সংগীত শিল্পী এন্ড্রু কিশোর আর নেই

  • আপডেট সময় সোমবার, ৬ জুলাই, ২০২০

॥স্টাফ রিপোর্টার॥ কিংবদন্তি সংগীত শিল্পী এন্ড্রু কিশোর আর নেই। তিনি আজ ৬ই জুলাই সন্ধ্যা ৬ টা ৫৫মিনিটে তাঁর জন্মস্থান রাজশাহী মহানগরীর একটি ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তার বয়স হয়েছিল ৬৫ বছর।
তিনি স্ত্রী, এক পুত্র, এক কন্যাসহ দেশ-বিদেশে বিপুল সংখ্যক গানের ভক্ত রেখে গেছেন।
পারিবারিক সূত্র জানিয়েছে, রাজশাহী মহানগরীতে বোন শিখা বিশ্বাসের মালিকানাধীন একটি ক্লিনিকে কয়েকদিন ধরে তাঁর চিকিৎসা চলছিল।
প্রয়াত এন্ড্রু কিশোরের বোনের জামাই প্যাট্রিক বিপুল বিশ্বাস জানান, তিনি ক্যান্সারে ভুগছিলেন। সিঙ্গাপুরে নয় মাস চিকিৎসা শেষে গত ১১ই জুন বিশেষ বিমানে তিনি দেশে ফেরেন। দেশে ফিরেই তিনি রাজশাহীতে চলে যান।
শরীরে নানা ধরনের জটিলতা নিয়ে অসুস্থ অবস্থায় গত বছরের গত ৯ই সেপ্টেম্বর উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরের উদ্দেশে দেশ ছেড়েছিলেন এই সংগীতশিল্পী। বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর গত ১৮ই সেপ্টেম্বর তাঁর শরীরে নন-হজকিন লিম্ফোমা নামক ব্লাড ক্যানসার ধরা পড়ে। সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক লিম সুন থাইয়ের অধীনে তাঁর চিকিৎসা শুরু হয়। সেখানে কয়েক মাস একনাগাড়ে তাঁর চিকিৎসা চলে। কিছুদিন আগে তিনি দেশে ফেরেন। চলে যান জন্মস্থান রাজশাহীতে।
সংগীত শিল্পী এন্ড্রু কিশোরের জন্ম রাজশাহীতে। সেখানেই কেটেছে তাঁর শৈশব ও কৈশোর। এন্ড্রু কিশোর প্রাথমিকভাবে সংগীতের পাঠ শুরু করেন রাজশাহীর আবদুল আজিজ বাচ্চুর কাছে। একসময় গানের নেশায় রাজধানী ঢাকায় ছুটে আসেন। মুক্তিযুদ্ধের পর তিনি রবীন্দ্র সংগীত, নজরুল সংগীত, আধুনিক গান, লোকগান ও দেশাত্মবোধক গানে রেডিওর তালিকাভুক্ত শিল্পী হন। ১৯৭৭ সালে আলম খানের সুরে ‘মেইল ট্রেন’ চলচ্চিত্রে ‘অচিনপুরের রাজকুমারী নেই যে তাঁর কেউ’ গানের মধ্য দিয়ে এন্ড্রু কিশোরের চলচ্চিত্রে প্লে­ব্যাক যাত্রা শুরু হয়। এরপর আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি তাঁকে।
এন্ড্রু কিশোরের খুব জনপ্রিয় গানের মধ্যে রয়েছে ‘জীবনের গল্প আছে বাকি অল্প’, ‘হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস’, ‘ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে’, ‘আমার সারা দেহ খেয়ো গো মাটি’, ‘আমার বুকের মধ্যে খানে’, ‘আমার বাবার মুখে প্রথম যেদিন শুনেছিলাম গান’, ‘ভেঙেছে পিঞ্জর মেলেছে ডানা’, ‘সবাই তো ভালোবাসা চায়’, ‘পড়ে না চোখের পলক’, ‘পদ্মপাতার পানি’, ‘ওগো বিদেশিনী’, ‘তুমি মোর জীবনের ভাবনা’, ‘আমি চিরকাল প্রেমের কাঙাল’ প্রভৃতি। এন্ড্রু কিশোর ৮বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন।
  প্রধানমন্ত্রীর শোক প্রকাশ ঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশিষ্ট সঙ্গীত শিল্পী এন্ড্রু কিশোরের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।
আজ এক শোক বার্তায় প্রধানমন্ত্রী, দেশের সঙ্গীতাঙ্গনে এন্ড্রু কিশোরের অবদানকে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন।
তিনি বলেন, ‘এন্ড্রু কিশোর চলচ্চিত্রে অনেক জনপ্রিয় গান গেয়েছেন এবং সেজন্য তিনি দেশের সঙ্গীত প্রেমীদের হৃদয়ে চিরদিন বেঁচে থাকবেন।’
প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ‘তাঁর (এন্ড্রু কিশোর) মৃত্যু দেশের সঙ্গীতাঙ্গনের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি।’
শেখ হাসিনা প্রয়াতর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।
আট বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিজয়ী গায়ক এন্ড্রু কিশোর আজ বিকেলে তাঁর পৈত্রিক নিবাস রাজশাহীর একটি ক্লিনিকে মারা যান। তিনি দুরারোগ্য ক্যান্সারে ভূগছিলেন।
প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম জানান, এরআগে প্রধানমন্ত্রী নিজেই এন্ড্রু কিশোরের চিকিৎসার দায়িত্বভার গ্রহণ করে শিল্পীকে আর্থিক সহযোগিতাও প্রদান করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
error: আপনি নিউজ চুরি করছেন, চুরি করতে পারবেন না !!!!!!