বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ০৯:০৭ পূর্বাহ্ন
Logo
সংবাদ শিরোনাম ::
পার্বত্য শান্তি চুক্তির ২৩তম বর্ষপূর্তি আজ ৪৯তম স্বাধীনতা দিবসকে ঘিরে অপরূপ সাজে সজ্জিত আমিরাত ট্রাভেল এজেন্ট অব বাংলাদেশ ইউএই পক্ষে দুবাই কনস্যুলেটে স্মারক লিপি মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত বিজয়ের মাস শুরু যমুনা নদীর উপরে বঙ্গবন্ধু রেলওয়ে সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজস্ব বলয় তৈরি করতে মাই ম্যান দিয়ে কমিটি গঠন করা যাবে না : ওবায়দুল কাদের তথ্য সচিব কামরুন নাহারের বিদায়ী সভা অনুষ্ঠিত আরডিএ বিতর্ক কর্মশালা-২০২০॥শিক্ষার্থী রেজিস্ট্রেশন চলছে বাইডেনের বিজয় নিশ্চিত হলে হোয়াইট হাউস ছাড়বেন ট্রাম্প শীঘ্রই ভুয়া অনলাইনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা : তথ্যমন্ত্রী

রাজবাড়ীর দৌলতদিয়ার বিচ্ছিন্ন চরাঞ্চল কুশাহাটার ২শতাধিক পরিবার ত্রাণ পায়নি ১মাসেও !

  • আপডেট সময় রবিবার, ২৬ এপ্রিল, ২০২০

॥মাহ্ফুজুর রহমান॥ প্রায় তিন যুগ আগে স্বামী হারান ১১০ বছর বয়সী বৃদ্ধা চেন্ত বেগম। এরপর থেকেই তার জীবন কাটে বহু কষ্টে এ চর থেকে আরেক চরে। বয়সের ভারে এখন বিছানা শয্যা চেন্ত বেগম। একমাত্র ছেলে ইসলাম সরদারের সঙ্গেই মানবেতর জীবন যাপন করছেন। শুধু চেন্ত বেগমই নয়, এখানে রয়েছে এরকম শত কষ্টের গল্প।

‘বাজান গো, করোনা কী? আজও তো চোহি দ্যাখলাম না!’ করোনা ভাইরাস সম্পর্কে জানতে চাইলে এমনই কথা বলেন কুশাহাটা চরাঞ্চলের চেন্ত বেগমের মতো একাধিক মানুষ। গল্পটি রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়ন থেকে প্রায় ৭কিঃ মিঃ দূরে পদ্মার বুকে জেগে উঠা বিচ্ছিন্ন চর ‘কুশাহাটা’ চরাঞ্চলের বাসিন্দাদের। দীর্ঘ ৫বছর ধরে এ চরে তারা বসবাস করে আসছেন।

বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে করোনা ভাইরাস, কিন্তু এখন পর্যন্ত এ ভাইরাস সম্পর্কিত কোন বিষয়ই জানেন না চরাঞ্চলের প্রায় ২০০টি পরিবারের হাজারো মানুষ। করোনা মোকাবেলায় সামাজিক দূরত্ব তো দূরের কথা, বুঝেই না হোম কোয়ারেন্টাইন, লকডাউন কী?

এই চরে তারা না খেয়ে থাকলেও মেম্বার-চেয়ারম্যানরা খোঁজ রাখেন না। আবার সরকারী ত্রাণ এখনও পাননি বলে দাবি চরাঞ্চলবাসীর। ফলে ত্রাণ চায় চরাঞ্চলের নিঃস্ব এসব মানুষ।

জানা গেছে, কুশাহাটা চরাঞ্চলে নেই কমিউনিটি ক্লিনিক, নেই সরকারী বিদ্যালয়, হাট-বাজারও নেই। এদের মধ্যে গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ভোটার তালিকায় রয়েছেন মাত্র ১৬০ জন। এমনটাই জানিয়েছেন ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুর রহমান মন্ডল। বাকি সবাই মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার চরশিবালয় কানাইদিয়া গ্রামের বাসিন্দা। দীর্ঘ ৫বছর এ চরে তারা বসবাস করে আসলেও একপাশে মানিকগঞ্জ শিবালয় উপজেলা, অন্যপাশে রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলা। চরের বাসিন্দা হওয়ায় অধিকাংশ সময় নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত এসব মানুষ।

সরজমিন ঘুরে দেখা গেছে, চরাঞ্চলের সকলেই অসহায়, হতদরিদ্র, ভূমিহীন ও নিম্ন আয়ের মানুষ। কৃষিকাজ ও মৎস্য শিকার তাদের পেশা। চরাঞ্চলবাসী পাকা ধান কেটে মাড়াইয়ের কাজ শেষ করে ঘরে তুলছেন। বাড়ির মা-মেয়ে, ছেলের বউ বৈশাখের বৃষ্টি উপেক্ষা করেই হাতে হাত লাগিয়ে পেঁয়াজ সংগ্রহে ব্যস্ত রয়েছেন। কারও মুখেই নেই মাস্ক, হাতে নেই হ্যান্ড গ্লাভস। নেই সামাজিক দূরত্ব। জানে না করোনার ভয়াবহতা কী।

কুশাহাটা চরের বাসিন্দা আবুল শেখ, আকবর মন্ডল, মজনু বেপারী, খায়রুল বেপারীসহ একাধিক ব্যক্তি জানান, কৃষিকাজ করেই তারা ভাতের যোগার করেন। কিন্তু মানিকগঞ্জের শিবালয়ে কৃষিপণ্য বিক্রির উদ্দেশে নিয়ে গেলে ফেরত আসতে হয়েছে বেশ কয়েকদিন। জানতে পারেন, করোনার কারণে দোকান, হাট-বাজার বন্ধ রয়েছে। একদিকে তাদের আবাদকৃত সবজি নষ্ট হচ্ছে, অপরদিকে লোকসানে পড়ছেন। এছাড়া পুঁজি-পাট্টা যা ছিল তাই দিয়ে এতদিন চলেছেন তারা। কিন্তু এখন ঘরে খাবার নেই, সামনের দিনগুলো কেমনে চলবে সেই চিন্তায়।

এসব মানুষদের অভিযোগ, চেয়ারম্যান ও মেম্বাররা অনেক জায়গায় ত্রাণ দিচ্ছে, কিন্তু তারা এখন পর্যন্ত কিছুই পাননি। নির্বাচনের সময় ভোট নিতে আসেন চেয়ারম্যান ও মেম্বাররা। কিন্তু না খেয়ে থাকার সময় কেউ ত্রাণ দিতে আসে না বলে আক্ষেপ করছিলেন চরের বাসিন্দারা।

চরাঞ্চলের বাসিন্দা ও মানিকগঞ্জের শিবালয় সদর উদ্দিন ডিগ্রি কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র হাসান মাহমুদ বলেন, একটি দেশের জন্মগত নাগরিক হিসেবে খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা ও চিকিৎসা মৌলিক অধিকার রয়েছে। কিন্তু আমরা চরাঞ্চলবাসীরা তো মৌলিক অধিকার থেকেই বঞ্চিত হচ্ছি।

দৌলতদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুর রহমান মন্ডল জানান, চর কুশাহাটায় প্রায় ১০৮টি পরিবারে ১৬০ জন ভোটার রয়েছেন। তাদের ভোটার আইডি কার্ডে সংগ্রহ করে নামের তালিকা তৈরি করা হয়েছে। দ্রুতই তাদেরকে ত্রাণ সহায়তা প্রদান করা হবে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
error: আপনি নিউজ চুরি করছেন, চুরি করতে পারবেন না !!!!!!