মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:১৫ অপরাহ্ন
Logo
সংবাদ শিরোনাম ::
পিএসসি’র নবনিযুক্ত চেয়ারম্যান সোহরাব হোসাইনের শপথ গ্রহণ শীতে করোনা পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে, তাই প্রস্তুতি নিন : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুক্তরাষ্ট্রে ১০ই অক্টোবর নাগাদ করোনায় মারা যেতে পারে ২লাখ ১৮হাজার লোক করোনার সংক্রমণ রোধে রাজবাড়ীতে ১৯৯৪ ব্যাচের উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ বিশ্ব জুড়ে এক সপ্তাহে কোভিড-১৯ এ মৃত্যুর সংখ্যা অগ্রহণীয় ভাবে বেশি : বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে আল্লামা আহমদ শফী’র জানাযাতে লাখ লাখ মানুষের অংশগ্রহণ শ্রীলংকা সফরের জন্য প্রস্তুতি॥ক্রিকেটাদের করোনা পরীক্ষা শুরু জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে অংশ নিচ্ছেন না মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ‘সরকারের গৃহীত পদক্ষেপে পেঁয়াজের বাজারে দাম কমতে শুরু করেছে’ জাপানের নতুন প্রধানমন্ত্রীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন

ধসে যাওয়ায় বালিয়াকান্দি উপজেলার নারুয়ায় নিশ্চিন্তপুর সেতু দিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ

  • আপডেট সময় রবিবার, ২৬ এপ্রিল, ২০২০

॥স্টাফ রিপোর্টার॥ রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি-নারুয়া সড়কের নিশ্চিন্তপুর সেতু ধসে যাওয়ায় গত ২৪শে এপ্রিল থেকে ওই সেতু দিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। দ্রততম সময়ের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ সেতুটি পুনঃ নির্মাণের দাবী উঠেছে।

জানা গেছে, সেতুটি বালিয়াকান্দি থেকে পাংশা উপজেলায় যাতায়াতের প্রধান সড়কে অবস্থিত। যা বালিয়াকান্দি-নারুয়া সড়ক নামে পরিচিত। ওই সেতুর নীচ দিয়ে মাঠের পানি ভাটিখালে চলে যায়। সেতুটির দৈর্ঘ্য ১২ মিটার ও প্রস্থ ৪মিটার। সেতুর উপর দিয়ে প্রতিদিন বিভিন্ন ধরনের যানবাহন চলাচল করে। বালিয়াকান্দি থেকে ওই সড়ক ব্যবহার করে আশপাশের বিভিন্ন এলাকাসহ পাংশা, মাগুরার শ্রীপুর, কুষ্টিয়ায় যাতায়াত করা হয়। তাছাড়া নারুয়া অঞ্চলের পেঁয়াজের খ্যাতি দেশ জুড়ে। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে প্রতিদিন পেঁয়াজ কিনতে অনেক পাইকাররা আসে। তারা ট্রাক বোঝাই করে পেঁয়াজ নিয়ে যায়। ধসে যাওয়ায় গত ২৪শে এপ্রিল থেকে সেতুর উপর দিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ ঘোষণা করে সেতুর দুই পাশ আটকে দেয়া হয়। এরপর থেকে বিকল্প রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানায়, প্রতিদিন শত শত মানুষ ওই সেতু ব্যবহার করে যাতায়াত করে। কৃষি প্রধান এলাকা হওয়ায় ফসল আনা-নেয়া করতে হয়। বর্তমানে আবার পেঁয়াজ বিক্রির মৌসুম চলছে। এ অবস্থায় সেতুটি দ্রুত মেরামত বা চলাচলের উপযোগী করা প্রয়োজন। সেতুটি বন্ধ করে দিয়ে আপাতত চলাচলের জন্য বিকল্প রাস্তা করা হলেও তা বেশীদিন চাপ সামলাতে পারবে বলে মনে হয় না।

বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী অফিসার একেএম হেদায়েতুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি জানার সঙ্গে সঙ্গে সরেজমিনে পরিদর্শন করেছি। অনেকদিন আগে সেতুটি নির্মাণ করা হয়েছিল। দেখে মনে হয়েছে মেরামত করার সুযোগ নেই, নতুন করে সেতু নির্মাণ করতে হবে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। এছাড়া দুর্ঘটনা এড়াতে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। সেতুর উভয় পাশে লাল পতাকাসহ সতর্কতামূলক সাইনবোর্ড লাগানো হয়েছে।

বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রকৌশলী আলমগীর বাদশা বলেন, সেতুটি আশির দশকে তৈরী করা হয়েছিল। নতুন করে সেতু নির্মাণের জন্য নির্বাহী প্রকৌশলীর মাধ্যমে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি লিখিতভাবে জানানো হয়েছে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর