fbpx
বুধবার, ০১ এপ্রিল ২০২০, ০৫:২৬ অপরাহ্ন
Logo
সংবাদ শিরোনাম ::
রাজবাড়ীর ৪টি হাসপাতালে পিপিই বিতরণ করলেন এমপি পুত্র মিতুল হাকিম ফরিদপুরের সাংবাদিকদের পিপিই দিলেন এমপি ইঞ্জিঃ মোশাররফ রাজবাড়ীতে হিজড়াদের মধ্যে খাদ্য ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ লকডাউনে মানবেতর জীবনযাপন করছে খেটে খাওয়া গোয়ালন্দের হতদরিদ্র মানুষ নির্বাচনী এলাকায় ১০ হাজার প্যাকেট খাবার বিতরণ করবেন এমপি কাজী কেরামত আলী বালিয়াকান্দি উপজেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সভা কালুখালীতে জেলা পুলিশের তৈরী হ্যান্ড স্যানিটাইজার-মাস্ক বিতরণ রাজবাড়ী পৌরসভা এলাকার কর্মহীন ৩শত পরিবারকে খাদ্য সহায়তা প্রদান কর্মহীন থাকা দরিদ্রদের মাঝে চন্দনী ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান মালেকের খাদ্য বিতরণ বালিয়াকান্দির আদিবাসী পল্লীতে পুলিশের তৈরী মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ

চীনে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা দেড় হাজার ছাড়িয়েছে

  • আপডেট সময় রবিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

॥আন্তর্জাতিক ডেস্ক॥ চীনে নতুন করোনা ভাইরাসে আরো ১৪৩ জন মারা গেছে। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে মৃতের সংখ্যা দেড় হাজার ছাড়িয়ে গেছে। সরকারীভাবে এ তথ্য জানানো হয়েছে। খবর এএফপি’র।
দেশটির জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশনের খবরে বলা হয়েছে, করোনা ভাইরাসে আরো ২হাজার ৬৪১জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে। আক্রান্তদের অধিকাংশই মধ্যাঞ্চলীয় হুবেই প্রদেশের। গত ডিসেম্বর মাসে এই প্রদেশ থেকেই করোনাভাইরাস পুরো চীনে ছড়িয়ে পড়েছে। দেশটিতে বর্তমানে ৬৬ হাজারেরও বেশি মানুষ এই ভাইরাসে আক্রান্ত।
নতুন করে আরো ১৪৩ জন মারা যাওয়ায় মোট মৃতের সংখ্যা ১,৫২৩ জনে পৌঁছেছে। এদের মধ্যে চারজন হুবেই প্রদেশের।
চীনা কর্তৃপক্ষ হুবেই প্রদেশের ৫৬ লাখ মানুষকে বিচ্ছিন্ন রেখেছে। ভাইরাস না ছড়ানোর প্রচেষ্টায় দেশের অন্যান্য এলাকা থেকে প্রদেশটির যাতায়াত ও যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয়েছে।
হুবেই প্রদেশে শুক্রবার ৪,৮০০ এর বেশি আক্রান্তের কথা জানা গেছে এবং গতকাল শনিবার ২,৪২০ জন নতুন আক্রান্তের কথা জানা যায়।
হুবেই প্রদেশের বাইরে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। গতকাল শনিবার হুবেই প্রদেশের বাইরে ২২১ জন আক্রান্ত হওয়ার কথা জানা গেছে।
কর্তৃপক্ষ গত শুক্রবার জানিয়েছে ১,৭১৬ জন স্বাস্থ্যকর্মী এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এদের মধ্যে ছয় জনের মৃত্যু হয়েছে।
আক্রান্ত স্বাস্থ্যকর্মীদের অধিকাংশই হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহানের। সেখানে বিপূল সংখ্যক রোগীর তুলনায় মাস্ক ও অন্যান্য প্রতিরোধ উপকরণের অভাব রয়েছে।
গত ডিসেম্বরে ভাইরাস সম্পর্কে প্রথম সতর্ককারী চিকিৎসক যিনি সতর্ক করার কারণে শাস্তি পেয়েছিলেন সেই চিকিৎসকের মৃত্যুর পর গণবিক্ষোভ দেখা দিলে তার এক সপ্তাহ পর এসব পরিসংখ্যান প্রকাশ শুরু হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
error: আপনি নিউজ চুরি করছেন, চুরি করতে পারবেন না !!!!!!