fbpx
রবিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৮:৩১ পূর্বাহ্ন
Logo
সংবাদ শিরোনাম ::
ভারতের মেদিনীপুরের উদ্দেশ্যে রাজবাড়ী স্টেশন থেকে ওরশ স্পেশাল ট্রেন ছেড়ে গেল মাটিপাড়া কাজী ছমির উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা-পুরস্কার বিতরণ রাজবাড়ীতে সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ শীর্ষক আলোচনা সভা ও চলচ্চিত্র প্রদর্শনী মুজিব বর্ষ উপলক্ষে স্বাড়ম্বরে জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস পালন হবে পাংশায় আ’লীগের কাউন্সিল ঘিরে তৎপর পদ প্রত্যাশীরা চীনে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা দেড় হাজার ছাড়িয়েছে ডাঃ শেখ ইয়াহিয়া স্কুলে বার্ষিক ক্রীড়া-সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অলংকারপুর আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা-সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান প্রথম আলো রাজবাড়ী বন্ধুসভার পরিচিতি সভা-সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পাংশায় আদি মহাশ্মশানে মহানাম যজ্ঞানুষ্ঠানে রাতদিন চলছে ভক্তদের মাঝে প্রসাদ বিতরণ

লাভজনক হওয়ায় বালিয়াকান্দির কৃষকরা তুলা চাষে আগ্রহী হচ্ছে

  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ১১ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

॥কাজী তানভীর মাহমুদ॥ স্বল্প খরচ ও কম পরিশ্রমের পাশাপাশি ভালো ফলন এবং অন্যান্য ফসলের তুলনায় লাভজনক হওয়ায় রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার কৃষকরা দিন দিন তুলা চাষে আগ্রহী হচ্ছে। বাড়ছে দেশী ও হাইব্রীড জাতের তুলা চাষ। উৎপাদিত তুলা ছড়িয়ে পড়ছে দেশের বিভিন্ন স্থানে। এছাড়া তুলা ক্ষেতে কাজ করার সুযোগ পাচ্ছে শত শত দরিদ্র নারী-পুরুষেরা।
তুলা উন্নয়ন বোর্ডের স্থানীয় কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এ বছর বালিয়াকান্দি উপজেলার ১৩৭ হেক্টর জমিতে তুলা চাষ করেছে ৩৬৩ জন কৃষক। মাটি ও আবহাওয়া তুলা চাষের উপযোগী হওয়ায় ২২ শতাংশের এক পাখি জমিতে মাত্র ৪শ’ গ্রাম বীজ বুনলেই তুলার ফলন হয় গড়ে ১০/১২ মণ করে।
কাশেদ আলী নামে একজন তুলা চাষী বলেন, তুলা চাষ লাভজনক। এ জন্য আমি ২০ বছর ধরে তুলা চাষ করে আসছি। এ বছর সাড়ে ৩ বিঘা জমিতে তুলা চাষ করেছি। এ বছর তুলার ভালো ফলন হয়েছে। আবহাওয়া ভালো থাকায় তুলার মানও ভালো হয়েছে। প্রতি বিঘাতে ১২ থেকে ১৫ মণ করে তুলা হয়। তবে আমরা তুলার সঠিক দাম পাই না। বর্তমান প্রতি মণ তুলা ২ হাজার টাকার মতো বিক্রি হচ্ছে। তুলার দাম অন্তত ২৫শ’ টাকা মণ নির্ধারণ করে দেয়ার জন্য সরকারের নিকট দাবী জানাচ্ছি।
তুলা ক্ষেতে কাজ করা নারী শ্রমিক ফাহিমা বেগম (৪০) বলেন, আমরা প্রতিদিন দেড়শ’ টাকা করে মজুরী পাই। এতে আমাদের একটা কাজের সুযোগ হয়েছে।
আরেক নারী শ্রমিক মনোয়ারা বেগম (৪৫) বলেন, প্রতি বছরের এই সময়ে যখন ক্ষেতে তুলা ফোটে তখন আমরা গ্রামের অসহায় নারীরা তুলা বাগানে কাজ করে আয় করি।
প্রতিবন্ধী শ্রমিক হাশেম (৫৬) বলেন, আমার মতো অনেক অসহায় গরীব নারী-পুরুষ তুলা ক্ষেতে কাজ করার সুযোগ পেয়েছে। তুলা সংগ্রহ করতে বেশী কষ্ট হয় না। আমরা আয় করার একটা পথ পেয়েছি।
তুলা উন্নয়ন বোর্ডের বালিয়াকান্দি উপজেলা কার্যালয়ের কটন ইউনিট অফিসার আহম্মদ হোসেন জানান, লাভজনক হওয়ায় এ উপজেলার কৃষকরা দিন দিন তুলা চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছে। এখানকার মাটিও তুলা চাষের খুব উপযোগী। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এ বছর প্রতি হেক্টর জমিতে ৩ টন করে তুলা উৎপাদনের আশা করা হচ্ছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
error: আপনি নিউজ চুরি করছেন, চুরি করতে পারবেন না !!!!!!