মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭:৩৩ পূর্বাহ্ন
Logo
সংবাদ শিরোনাম ::
পিএসসি’র নবনিযুক্ত চেয়ারম্যান সোহরাব হোসাইনের শপথ গ্রহণ শীতে করোনা পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে, তাই প্রস্তুতি নিন : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুক্তরাষ্ট্রে ১০ই অক্টোবর নাগাদ করোনায় মারা যেতে পারে ২লাখ ১৮হাজার লোক করোনার সংক্রমণ রোধে রাজবাড়ীতে ১৯৯৪ ব্যাচের উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ বিশ্ব জুড়ে এক সপ্তাহে কোভিড-১৯ এ মৃত্যুর সংখ্যা অগ্রহণীয় ভাবে বেশি : বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে আল্লামা আহমদ শফী’র জানাযাতে লাখ লাখ মানুষের অংশগ্রহণ শ্রীলংকা সফরের জন্য প্রস্তুতি॥ক্রিকেটাদের করোনা পরীক্ষা শুরু জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে অংশ নিচ্ছেন না মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ‘সরকারের গৃহীত পদক্ষেপে পেঁয়াজের বাজারে দাম কমতে শুরু করেছে’ জাপানের নতুন প্রধানমন্ত্রীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন

ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনে নৌকার বিজয়

  • আপডেট সময় রবিবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

॥স্টাফ রিপোর্টার॥ ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জয়ের দ্বারপ্রান্তে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস। অন্যদিকে উত্তর সিটি করপোরেশনেও বিপুল ভোটে এগিয়ে রয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী আতিকুল ইসলাম।
ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন : ঢাকা দক্ষিণে ১১৫০টি কেন্দ্রের মধ্যে ১০৭৫টি কেন্দ্রের ফল পাওয়া গেছে। এতে নৌকা প্রতীকে প্রায় দ্বিগুণ ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন তাপস। তিনি পেয়েছেন ৩ লাখ ৯৯ হাজার ৬৯৫ ভোট। অন্যদিকে ধানের শীষ প্রতীকে ইশরাক হোসেন পেয়েছেন ২ লাখ ১৯ হাজার ২৭ ভোট। এছাড়া মাছ প্রতীকে আব্দুন সামাদ সুজন পেয়েছেন ১১ হাজার ৮৮১ ভোট। আম প্রতীকে বাহারানে সুলতান বাহার পেয়েছেন ২৯৬৩ ভোট। ডাব প্রতীকে আক্তারুজামান ওরফে আয়াতুল্লাহ পেয়েছেন ২ হাজার ২৭৭ ভোট। হাতপাখা প্রতীকে আব্দুর রহমান পেয়েছেন ২৪ হাজার ৭১০ ভোট। লাঙ্গল প্রতীকে সাইফুদ্দিন মিলন পেয়েছেন ৫ হাজার ২৫১ ভোট। শুক্রবার (১ ফেব্রুয়ারি) বিকাল পৌনে ৫টায় রাজধানীর বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি থেকে এই ফলাফল ঘোষণা শুরু হয়। রিটার্নিং কর্মকর্তা আব্দুল বাতেন বলেন, আমরা কাউন্সিলরদের আংশিক ফল প্রকাশ করবো না। কারণ, তাহলে অনেক সময় লাগবে। যখন ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের পূর্ণাঙ্গ ফল পাবো, তখন আমরা জয়ী প্রার্থী ও তার নিকটতম প্রার্থীর ভোট সংখ্যা জানিয়ে দেবো।
ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন : ঢাকা উত্তরে মোট ১৩১৮টি কেন্দ্রের মধ্যে ৭৩৯টি কেন্দ্রের ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। এতে বিপুল ভোটে এগিয়ে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আতিকুল ইসলাম। তিনি ভোট পেয়েছেন ২ লাখ ৩৫ হাজার ২৩৪। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছেন বিএনপির প্রার্থী তাবিথ আউয়াল। তিনি পেয়েছেন ১ লাখ ৪৬ হাজার ৩৫৫ ভোট।

প্রতীকের নির্বাচনি বুথ ভেঙে দেয়। এর কিছুক্ষণ পর মিনুর অনুসারীরা ফরিদাবাদ হাইস্কুলে ঢুকে ঘুড়ি প্রতীকের পোলিং এজেন্টদের কার্ড কেড়ে নিয়ে কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়। পাশের ফজলুল হক মহিলা কলেজ কেন্দ্রের গেটে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।  ঘটনাস্থলে দায়িত্বরত গেন্ডারিয়া থানার এসআই আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, দুই প্রার্থীর লোকজনের মধ্যে একটু ঝামেলা হয়েছিল। আমরা সবাইকে সরিয়ে দিয়েছি। পরিস্থিতি সম্পূর্ণ আমাদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এদিকে সকালে আদাবরের ৩০ নম্বর ওয়ার্ড ইকরা স্কুল কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী আবুল কাসেমের সমর্থকরা বিদ্রোহী টিফিন ক্যারিয়ার প্রার্থীর লোকজনদের মারধর করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মিরপুরের আদর্শ স্কুল কেন্দ্রে ঠেলাগাড়ি প্রতীকের আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর অনুসারীদের সঙ্গে বিদ্রোহী প্রার্থী কদম আলী মাতবরের লোকজনের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার কেন্দ্র ঘুরে দেখা যায়, বিএনপি মনোনীত প্রার্থীদের  অনুসারীদের তেমন একটা উপস্থিতি নেই। সকালে কলাবাগানের খান হাসান স্কুল কেন্দ্রে ১৬ নং ওয়ার্ডের বিএনপি সমর্থিত  কাউন্সিলর প্রার্থী সিরাজুল ইসলাম প্রতিপক্ষের হামলায় আহত হন।

এ ছাড়া ২২ নং ওয়ার্ডের হাজারীবাগ থানার সালেহা স্কুল ও নবাবগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে বিএনপির মেয়র ও দলটির সমর্থিত কাউন্সিল প্রার্থীর এজেন্টকে বের করে দেওয়ার  অভিযোগ রয়েছে। দুপুর পৌনে ১২টার দিকে ২৭ নম্বর ওয়ার্ডের বকশিবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের  কাউন্সিলর প্রার্থী ও বিএনপির প্রার্থীদের সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় অন্তত ৮টি  ককটেল বিস্ফোরণের শব্দ পাওয়া  যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এই কেন্দ্রে সকাল থেকেই মিষ্টি কুমড়ো প্রতীকের আওয়ামী মনোনীত প্রার্থী ওমর বিন আবদাল আজিজ তামিম ও তার সমর্থকেরা উপস্থিত ছিলেন। বেলা ১১টা ৪৭ মিনিটের দিকে এই ওয়ার্ডে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী শাহেদা মোরশেদের সমর্থকেরা উপস্থিত হন। এ সময় উভয়পক্ষের মধ্যে ঢিল ছোড়াছুড়ি ও ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা অন্তত আটটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায়। এই ঘটনার সময় ভোট দেওয়ার জন্য কেন্দ্রের লাইনে থাকা ভোটাররা স্থান ছেড়ে সরে যান। তাৎক্ষণিকভাবে কিছু সময়ের জন্য ভোটগ্রহণ বন্ধ থাকে। ওই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এদিকে ঝামেলা হয়েছিল। ভোটগ্রহণ কিছুক্ষণের জন্য বন্ধ ছিল। এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক।
এ ছাড়া রাজধানীর মোহাম্মদপুরের জাফরাবাদে আগামী নিউজের রিপোর্টার মোস্তাফিজুর রহমান সুমনের মাথা ফাটিয়ে দিয়েছে
আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থীর লোকজন। তাকে উদ্ধার করে শিকদার মেডিকেলে ভর্তি করা হয়।

এদিকে দুই সিটি নির্বাচনে রাজধানীজুড়ে সুন্দর ও শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ চলছে দাবি করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, সারা ঢাকা শহরে ভোটাররা শান্তিপূর্ণভাবে ভোট দিতে আসছেন। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভোটারের সংখ্যাও বাড়বে। তিনি বলেন, আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী তাদের দায়িত্ব পালন করছে। কারও কোনও অভিযোগ থাকলে তাদের জানালে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে। এছাড়াও প্রিজাইডিং অফিসার, পোলিং এজেন্টরা রয়েছেন। কেন্দ্র থেকে বিএনপির এজেন্টদের বের করে দেওয়াসহ বিভিন্ন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তিনি বলেন, তারা এমন কথা সবসময়ই বলে আসছেন, এটা নতুন কিছু নয়। বিগত দিনগুলোতেও তাদের এমন কথা বলতে শুনেছি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর