মঙ্গলবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:১৫ পূর্বাহ্ন
Logo
সংবাদ শিরোনাম ::
পদ্মায় অবৈধ বালু উত্তোলন-ট্রাক ও বলগেট থেকে চাঁদাবাজী বন্ধের দাবী দুই এমপির অনলাইন নিউজ পোর্টালের নিবন্ধন আগামী সপ্তাহ থেকে শুরু হবে — তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ রাজবাড়ী পৌরসভায় সোশ্যাল মোবিলাইজেশন ক্যাম্পেইন রাজবাড়ীর আলীপুরে চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রীকে হত্যার ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ গোয়ালন্দ উপজেলার ৪ জন প্রাথমিক শিক্ষক শ্রেষ্ঠ শিক্ষক হিসেবে নির্বাচিত ৯৯৯ থেকে ফোন পেয়ে বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করলো পুলিশ গোয়ালন্দে হেরোইনসহ নারী মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার জাতীয় দিবস উপলক্ষে আমিরাতকে সাজানো হয়েছে অপরূপ সাজে এনজিও ফাউন্ডেশন দিবস উপলক্ষে ফরিদপুরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত এনজিও ফাউন্ডেশন দিবস উপলক্ষে রাজবাড়ীতে আলোচনা সভানুষ্ঠিত

রাজিব-দিয়ার মৃত্যু মামলায় দুই চালকসহ ৩জনের যাবজ্জীবন জেল

  • আপডেট সময় সোমবার, ২ ডিসেম্বর, ২০১৯

॥স্টাফ রিপোর্টার॥ রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে বাস চাপায় দুই শিক্ষার্থীর মর্মান্তিকভাবে নিহত হওয়ার ঘটনার মামলায় আদালত জাবালে নূর পরিবহনের দুই চালকসহ ৩জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছেন ।
গতকাল ১লা ডিসেম্বর ঢাকা মহানগর দায়রা জজ ইমরুল কায়েশ এ রায় ঘোষণা করেন। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় বাসের মালিক জাহাঙ্গীর আলম ও হেলপার এনায়েতকে খালাস দেয়া হয়।
রায়ে যাবজ্জীবন কারাদন্ডের পাশাপাশি ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে আরো ছয় মাসের কারাদন্ডের আদেশ দেয়া হয়েছে।
যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামীরা হলেন ঃ দুই চালক মাসুম বিল্লাহ ও জুবায়ের সুমন এবং তাদের সহকারী কাজী আসাদ। কাজী আসাদ পলাতক রয়েছেন।
গত ১৪ই নভেম্বর রাষ্ট্র ও আসামী পক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শেষে রায় ঘোষণার জন্য ঢাকা মহানগর দায়রা জজ ইমরুল কায়েশ ১লা ডিসেম্বর দিন ধার্য করেন। এ মামলায় ৪১ সাক্ষীর মধ্যে ৩৭ জন সাক্ষ্য দেন।
মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০১৮ সালের ২৯শে জুলাই রাজধানীর বিমান বন্দর সড়কের কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সামনে এমইএস বাসস্ট্যান্ডে জাবালে নূর পরিবহনের দুই বাসের রেষারেষিতে বাস চাপায় নিহত হন শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র আবদুল করিম রাজীব(১৭) ও একাদশ শ্রেণির ছাত্রী দিয়া খানম মিম(১৬)। ঘটনার দিনই নিহত মিমের বাবা জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে ক্যান্টনমেন্ট থানায় মামলা করেন।
২০১৮ সালের ৬ই সেপ্টেম্বর ঢাকা মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের(ডিবি) পরিদর্শক কাজী শরিফুল ইসলাম চার্জশীট জমা দেন। গত ২৫শে অক্টোবর ঢাকা মহানগর দায়রা জজ ইমরুল কায়েশ আসামীদের অব্যাহতির আবেদন না মঞ্জুর করে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ(চার্জ) গঠন করেন।
অভিযোগপত্রে বলা হয়, ঘটনার দিন-দুপুরে চালক ও তাদের সহকারীরা বেশি লোক ওঠানোর লোভে যাত্রীদের কথা না শুনে এবং তাদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা না করে জিল্লুর রহমান উড়াল সড়কের ঢালের সামনে রাস্তা ব্লক করে দাঁড়ান। এ সময় আরেকটি বাসের চালক মাসুম বিল্লাহ রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের ১৪ থেকে ১৫জন শিক্ষার্থীর ওপর গাড়িটি উঠিয়ে দেন। ঘটনাস্থলেই দুই শিক্ষার্থীর মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটে। এতে আহত হন ৯জন।
মামলায় আসামী করা হয় ৬জনকে। তাদের মধ্যে জাবালে নূর পরিবহনের মালিক জাহাঙ্গীর আলম, দুই চালক মাসুম বিল্লাহ ও জুবায়ের সুমন এবং তাদের সহকারী এনায়েত হোসেন কারাগারে। জাবালে নূর পরিবহনের আরেক মালিক শাহাদাত হোসেন জামিনে রয়েছেন।
রায়ের পর এক প্রতিক্রিয়ায় ঢাকা মহানগর আদালতের পিপি আব্দুল্লাহ আবু বলেন, “রায়ে আমরা সন্তুস্ট। আসামীদের বিরুদ্ধে দন্ড বিধির ৩০৪ ধায়ায় আনীত অভিযোগ প্রমানিত হয়েছে। আইন অনুযায়ী তিন আসামীর সর্বোচ্চ সাজা হয়েছে।” পিপি বলেন, এ রায়ে আবারও প্রমানিত হয়েছে অপরাধ করে কেউ পার পাবেন না।
সরকারী কৌসুলী তাপস কুমার পাল বলেন, অভিযোগ গঠনের আদেশকে চ্যালেঞ্জ করে উচ্চ আদালতে যান জাবালে নূরের মালিক শাহাদাত হোসেন। তাঁর পক্ষে উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশ আসে। বাকি ৫জনের বিরুদ্ধে মামলার কার্যক্রম চলমান রয়েছে। পিপি জানান, আজ তারা এ স্থগিতাদেশ বিষয়ে পদক্ষেপ নিবেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
error: আপনি নিউজ চুরি করছেন, চুরি করতে পারবেন না !!!!!!