সোমবার, ০৬ জুলাই ২০২০, ১০:৫৫ পূর্বাহ্ন
Logo
সংবাদ শিরোনাম ::
পাংশার ১২০ জন নরসুন্দরকে খাদ্য সামগ্রী প্রদান করলেন মিতুল হাকিম ডোনাল্ড ট্রাম্পকে যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা ঘোষণা বার্ষিকীতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা বিশ্বে করোনায় মোট ৫ লাখ ২৬ হাজার ৬৬৩ জনের মৃত্যু রাজবাড়ীসহ দেশের ছয়টি জেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে ইউনিসেফের নির্বাহী বোর্ডের বার্ষিক অধিবেশনের সমাপনী রাজবাড়ীতে সোনালী ও ইসলামী ব্যাংকের ১৯জন করোনায় আক্রান্ত॥শাখা লকডাউন হচ্ছে রবিবার॥জেলায় আক্রান্ত ৫৪৬জন জাতীয় সংসদে ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের ৫লাখ ৬৮হাজার কোটি টাকার বাজেট পাস আমেরিকায় হু হু করে বাড়ছে করোনার নতুন শনাক্তের সংখ্যা॥কমছে মৃত্যু স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে আগামী ৩রা আগস্ট পর্যন্ত চলবে অফিস ও গণপরিবহন করোনার ভয়াবহতা এখনও বাকি : বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

এইডসের ব্যাপারে আমাদের সচেতনতা বাড়াতে হবে —জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম

  • আপডেট সময় সোমবার, ২ ডিসেম্বর, ২০১৯

॥চঞ্চল সরদার॥ বিশ্ব এইডস দিবস উপলক্ষে রাজবাড়ী সিভিল সার্জনের কার্যালয়ের আয়োজনে গতকাল ১লা ডিসেম্বর সকালে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সিভিল সার্জনের কার্যালয় প্রাঙ্গণ থেকে র‌্যালীটি বের হয়ে পাবলিক হেলথ মোড় প্রদক্ষিণ করে একই স্থানে এসে শেষ হয়। এরপর সিভিল সার্জনের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম।
সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ মাহফুজার রহমান সরকারের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে সদর হসপাতালের তত্বাবধায়ক ডাঃ দীপক কুমার বিশ^াস, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(প্রশাসন ও অপরাধ) মোঃ সালাহউদ্দিন ও জেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের উপ-পরিচালক গোলাম মোঃ আজম। অন্যান্যের মধ্যে সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ শেখ মোঃ আব্দুল হান্নান এবং এনজিও রাসের নির্বাহী পরিচালক লুৎফর রহমান লাবু প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। সভা সঞ্চালনা করেন সিভিল সার্জনের কার্যালয়ের জেলা স্বাস্থ্য তত্ত্বাবধায়ক মোঃ নূরুল ইসলাম এবং এইডসের উপর পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টশন করেন সির্ভিল সার্জনের কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার ডাঃ আছমা আক্তার।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম বলেন, নানাভাবে এইডস হতে পারে। কারো এইডস হলে তার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায় এবং ধীরে ধীরে সে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যায়। এ জন্য এইডসের ব্যাপারে আমাদের সচেতনতা বাড়াতে হবে। এইডস প্রতিরোধে নিরাপদ যৌনতা ও ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলতে হবে। ইনজেকশনের সিরিঞ্জ ব্যবহারে, সেলুনে সতর্ক থাকতে হবে। কারো এইডস ধরা পড়লে গোপন না করে চিকিৎসা করাতে হবে। সবাই সচেতন হলে এই ঘাতক রোগ থেকে আমরা মুক্ত থাকতে পারবো।
সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ মাহফুজার রহমান সরকার বলেন, এইডসের সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো কারো শরীরে এই জীবাণু বাসা বাধলে সাথে সাথে বোঝার কোন উপায় নাই। দেখে বোঝা যায় না এইডস হয়েছে। সাধারণত ১০ থেকে ১৫ বছর পর ধরা পড়ে। এর চিকিৎসাও অত্যন্ত ব্যয়বহুল। তারপরও আক্রান্ত রোগীকে বাঁচানো যায় না। রাজবাড়ী জেলায় আমরা ১জন এইডস রোগীকে সনাক্ত করেছি। তার কাছ থেকে জেনেছি সে যৌনপল্লীতে যাতায়াত করতো। এইডস কোন ছোঁয়াচে রোগ নয়। একসাথে চলাফেরা করলে, একই বিছানায় ঘুমালে, একই প্লেটে খাবার খেলেও এইডস ছড়ায় না। এইডস প্রতিরোধে আমাদের সকলকে সচেতন হতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর