fbpx
শনিবার, ০৪ এপ্রিল ২০২০, ০৯:৩৭ পূর্বাহ্ন
Logo
সংবাদ শিরোনাম ::
রাজবাড়ীতে ফার্মেসী ছাড়া কোন দোকান সন্ধ্যা ৬টার পরে খোলা রাখা যাবে না পাংশায় কর্মহীন দরিদ্র মানুষের ঘরে ঘরে খাদ্য সামগ্রী পৌছে দিচ্ছেন আ’লীগ নেতা মিতুল দেশ বরেণ্য কবি ও ছড়াকার নাসের মাহমুদের ইন্তেকাল র‌্যাব-৮ বরিশাল কর্তৃক ১১টি জেলায় জেলে-বেদে ও আত্মসমর্পনকৃত জলদস্যুদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে রাজবাড়ীর ১নং রেলগেট বন্ধ করে দিয়েছে পুলিশ রাজবাড়ী পৌরসভার উদ্যোগে মসজিদে জীবাণুনাশক বালিয়াকান্দির জঙ্গল ইউনিয়নে এমপি জিল্লুল হাকিমের উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ রাজবাড়ী পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের ১১৫০ জনের মধ্যে আটা বিতরণ রাজবাড়ীর শহীদওহাবপুর ইউনিয়নে ৩শত দরিদ্র পরিবারের মধ্যে খাদ্য ও মাস্ক বিতরণ রাজবাড়ীতে সিপিবি’র ব্যবস্থাপনায় দুস্থদের মধ্যে খাবার বিতরণ চলছে

মানুষকে বিনোদন দেয়ার জন্য পাতার তৈরী বাঁশি বাজায় বহরপুরের ওহিদুল

  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ২৬ নভেম্বর, ২০১৯

॥সোহেল মিয়া॥ ওহিদুল মন্ডল(৪৫) বালিয়াকান্দি উপজেলার বহরপুর ইউনিয়নের মধুপুর গ্রামের খেটে খাওয়া সাধারণ একজন মানুষ। নিজের কোন জমিজমা নেই। অন্যের জমি চাষ করে সংসার চালাতে হয় তাকে। আর্থিকভাবে সচ্ছল না হলেও তার মনে সবসময় রয়েছে আনন্দ। সারা দিনের হাড়খাটুনি পরিশ্রমের পর সন্ধ্যায় তিনি মানুষকে বিনোদন দেয়ার জন্য পাতার তৈরী বাঁশি বাজান। মানুষকে আনন্দ দিতে তার ভালো লাগে। বিভিন্ন গাছের পাতা দিয়ে তৈরী বাঁশি বাজিয়ে তিনি অসংখ্য মানুষের মন জয় করেছেন।
মধুপুর গ্রামের মৃত ইশারত মন্ডলের ছেলে ওহিদুল মন্ডল এভাবে গত ৩০ বছর যাবৎ পাতার তৈরী বাঁশি বাজিয়ে আসছেন। তার বাঁশির বেশীরভাগ ¯্রােতাই গ্রাম-বাংলার খেটে খাওয়া কৃষক। তাদেরকে একটু বিনোদন দেওয়ার জন্যই তিনি প্রতিদিন সন্ধ্যার পর বাঁশি বাজানোর আসর বসান। বাঁশিতে পল্লীগীতি, ভাটিয়ালী, ভাওয়াইয়া, লালনসহ গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী বিভিন্ন ধরনের গানের সুর তোলেন তিনি।
ইলিশকোল গ্রামের বাসিন্দা কামরুজ্জামান কামরুল বলেন, আমরা অনেকদিন ধরে ওহিদুলকে পাতার তৈরী বাঁশি বাজাতে দেখছি। দারিদ্রতা ও দুখ-কষ্টের মধ্যে জীবন-যাপন করলেও তার আনন্দের কোন কমতি নেই। সন্ধ্যা হলেই সে কোন একটি জায়গায় বসে পাতা দিয়ে বাঁশি বাজায়। এভাবে পাতা দিয়ে বাঁশি বাজাতে পারাটাও একধরনের প্রতিভা।
বালিয়াকান্দির নির্মল সাংস্কৃতিক একাডেমীর অধ্যক্ষ উত্তম কুমার গোস্বামী বলেন, বাঁশি বাজানো আমাদের গ্রাম-বাংলার একটি ঐতিহ্য। বর্তমানে বাঁশি বাজানোর সেই সংস্কৃতি হারিয়ে যেতে বসেছে। ওহিদুল গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্য-সংস্কৃতিকে ধারণ করছেন। শিল্পী সত্ত্বার এমন বহিঃপ্রকাশ গ্রাম-বাংলাতেই সম্ভব। ওহিদুল একজন প্রতিভাবান বংশীবাদক।
ওহিদুল মন্ডল বলেন, ছোট বেলায় দেখেছি চাচাতো ভাই বাঁশি বাজাতো। তার বাজানো দেখে আমিও বাঁশি বাজাতে উৎসাহিত হই। ৩০ বছর ধরে আমি পাতা দিয়ে তৈরী বাঁশি বাজিয়ে আসছি। গ্রামের কৃষকরা সারাদিন মাঠে কাজ করে এসে ক্লান্ত হয়ে যায়। তাদের বিনোদনের তেমন কোন ব্যবস্থা নেই। তাই তাদেরকে একটু আনন্দ দেয়ার জন্যই আমি পাতার বাঁশি বাজাই।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
error: আপনি নিউজ চুরি করছেন, চুরি করতে পারবেন না !!!!!!