বৃহস্পতিবার, ০৯ জুলাই ২০২০, ০৬:৫০ পূর্বাহ্ন
Logo
সংবাদ শিরোনাম ::
সাংবাদিক ওয়াহিদ মিলটনের মাতা আম্বিয়া বেগমের আজ প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী রাজবাড়ীতে ১বছরের শিশু সুরাইয়াকে পানিতে ফেলে হত্যা॥পাষাণী মা গ্রেফতার রাজবাড়ী সদরে উপসর্গ নিয়ে মৃত ১জনসহ জেলায় আরও ১১জন জনের করোনা শনাক্ত॥মোট আক্রান্ত ৬৩৯জন ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রাজবাড়ী জেলা প্রশাসনের দুইটি সভা করোনা ভাইরাস বাতাসেও ছড়াতে পারে॥এ দাবী পর্যালোচনা করছে ডব্লিওএইচও কালুখালীর মদাপুর ইউনিয়নে বিট পুলিশিং কার্যক্রম উদ্বোধন করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় যশোর সেনানিবাসের সেনা সদস্যদের জনকল্যাণমূলক কার্যক্রম অব্যাহত মুজিববর্ষ ও আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে কালুখালীর বোয়ালিয়ায় আ’লীগের উদ্যোগে বৃক্ষ রোপণ উদ্বোধন রাজবাড়ী জেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির জরুরী সভায় বিভিন্ন সিদ্ধান্ত গৃহীত গোয়ালন্দের বিদায়ী ও নবাগত ইউএনও’র সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত

গোয়ালন্দে ছোট ভাকলায় অগ্নিকান্ডে চানাচুর মামা-ভাগ্নে ফ্যাক্টরীর ১০ লক্ষ টাকার সম্পদ পুড়ে ছাই

  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৯

॥মেহেদুল হাসান আক্কাছ॥ রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার ছোট ভাকলা ইউনিয়নের নলডুবি এলাকার মৌলভী বাজারে একটি চানাচুর ফ্যাক্টরীতে গত ১২ই নভেম্বর দিনগত রাত ১১টার দিকে অগ্নিকান্ডে ফ্যাক্টরীর ১০ লক্ষাধিক টাকার সম্পদ পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।
ঘটনাস্থলে গিয়ে জানা যায়, প্রতিদিনের ন্যায় “মামা-ভাগ্নে” চানাচুর নামে ওই ফ্যাক্টরীর মালিক ও শ্রমিকরা দৈনন্দিন কার্যক্রম শেষ করে রাত ৯টার দিকে ফ্যাক্টরীটি বন্ধ করে চলে যায়। গত মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে বাজারের অন্য দোকানের কর্মচারীরা ওই ফ্যাক্টরীতে আগুন জ্বলতে দেখে চিৎকার করতে থাকলে এলাকাবাসী এগিয়ে এসে আগুন নেভানোর চেষ্টা করে। এক পর্যায় তারা গোয়ালন্দ ফায়ার সার্ভিস স্টেশনে খবর দেয়। ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা এসে আগুন নেভাতে সক্ষম হয়। ততক্ষনে আগুনের লেলিহান শিখায় ওই চানাচুর ফ্যাক্টরীর মেশিন পত্রসহ যাবতীয় মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়।
এ সময় দেখা যায়, আগুনে ফ্যাক্টরীটিতে থাকা তৈরীকৃত চানাচুর ও অন্যান্য মালামালসহ ফ্যাক্টরীটির যাবতীয় মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। শুধু পোড়া ঢেউটিন ও সিমেন্টের পাকা খুটিগুলি দাড়িয়ে রয়েছে।
মৌলভী বাজারের পাশের মোঃ ইয়ার হোসেন ও আঃ মান্নান জানান, প্রায় ১বছর আগে নুরুল ইসলাম শেখ, কুদরত মন্ডল ও মনির হোসেন নামে তিন ব্যক্তি “মামা ভাগ্নে” নামে ওই চানাচুর ফ্যাক্টরীটি তৈরী করেন। সুনামের সাথেই তারা ব্যবসা চালিয়ে আসছিল। হঠাৎ কি কারনে আগুন লাগল যা বোঝা যায়নি। আগুনে তাদের প্রায় ৮/১০ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।
স্থানীয়রা আরো জানায়, ফ্যাক্টরীর ভিতরে থাকা তেল ও তৈলজাত পন্য এবং প্যাকিংয়ের কাজে ব্যবহৃত পলিথিনের কারনে আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। ফ্যাক্টরীতে বাহির থেকে দরজায় তালাবদ্ধ থাকায় কোন কিছু বেড় করা সম্ভব হয়নি। যার কারনে ক্ষয়ক্ষতি বেশী হয়েছে।
ফ্যাক্টরী মালিক নুরুল ইসলাম ও কুদরত আলী জানান, প্রতিদিনের ন্যায় ঘটনার দিন আমরা শমিকদের বিদায় করে দিয়ে রাত ৯টার দিকে বাড়ী চলে যাই হঠাৎ বাজার থেকে ফোন পেয়ে ছুটে এসে দেখি আগুনে আমাদের সব শেষ করে দিয়েছে। তবে কি কারণে আগুন লেগেছে তারা তা বলতে পারেননি। এ সময় বলেন প্রায় কোন রকমে বেঁচে থাকার আশায় আমরা ৩জন মিলে মাত্র বছর খানেক আগে ফ্যাক্টরীটি চালু করেছিলাম। আজ কি কারনে কি হলো কিছুই বঝতে পারছি না। তাদের ১১ লক্ষ টাকার মালামাল পুড়ে গেছে বলে জানান।
এ ব্যাপারে গোয়ালন্দ ফায়ার স্টেশন কর্মকর্তা আব্দুর রহমান জানান, চানাচুর ফ্যাক্টরীতে আগুন লাগার খবর পেয়ে আমরা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নেভাতে সক্ষম হই। এ সময় তিনি আরো বলেন, ওই চানাচুর ফ্যাক্টরীর চুল্লির আগুন থেকেই অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর