বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০৯:৩০ পূর্বাহ্ন
Logo
সংবাদ শিরোনাম ::
লম্পট তারিকুলের বিচার ও মা’কে ফিরে পেতে চায় প্রতিবন্ধী সন্তানরা॥ডিসির নিকট স্মারকলিপি প্রদান বালিয়াকান্দিতে বাজারে পেঁয়াজের দাম মনিটরিং করলেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব তুরস্কের বিরুদ্ধে এবার যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা পাংশায় দুইটি সংস্থা পরিদর্শন করলেন মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক পাংশার হাবাসপুরে বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস পালিত জেন্ডার ভিত্তিক সহিংসতা প্রতিরোধে পুরুষদের দায়িত্ব-ভূমিকা শীর্ষক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত কালুখালীতে জব্দকৃত আড়াই মণ ইলিশ মাছ এতিমখানায় বিতরণ দলীয় সমর্থক আবু ডাক্তারের মৃত্যুতে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামীলীগের শোক রাজবাড়ীতে বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস ও স্যানিটেশন মাস উপলক্ষে র‌্যালী-হাত ধোয়া প্রদর্শনী ও আলোচনা সভা রাজবাড়ীতে বিশ্ব সাদা ছড়ি নিরাপত্তা দিবস পালিত

হাঁটলেই চার্জ হবে মোবাইল!

  • আপডেট সময় শনিবার, ২৩ মার্চ, ২০১৯

॥মাতৃকণ্ঠ ডেস্ক॥ মোবাইল চার্জ নিয়ে উদ্ভাবনের বিষয়টি পুরোনো। তবুও নতুন নতুন পদ্ধতি আবিস্কার করে যাচ্ছেন প্রযুক্তিবিদরা। তবে ভারতের রাজধানী দিল্লীর দুই শিক্ষার্থী ভেঙে ফেলেছে বিগত উদ্ভাবনগুলোর রেকর্ড। তারা এমন একটি পদ্ধতি আবিস্কার করেছেন, যাতে শুধু হাঁটলেই চার্জ হবে মোবাইল। পথে হাঁটতে হাঁটতেই চার্জ হবে মোবাইল ফোন। ১৯ বছর বয়সী দিল্লির মোহক ভাল্লা এবং আনন্দ গঙ্গাধারণ এমনই এক নতুন পদ্ধতির কথা জানিয়েছেন। দুই বন্ধু দশম শ্রেণিতে পড়ার সময় থেকেই এমন একটি চার্জার বানানোর পরিকল্পনা করেন। এর পর মাত্র তিন মাসের মধ্যে প্রথম মডেলটি বানিয়ে ফেলেন। তারা এটির নাম দিয়েছেন ‘ওয়াকিং চার্জার’। প্রথমদিকে এই মডেলটিতে কিছু সমস্যা ছিল। তাও খুঁজে খুঁজে ঠিক করে ফেলেছে মোহক ও আনন্দ। আগামী দুই বছরের মধ্যে বাজারে আসতে পারে এই চার্জার। মোহক ও আনন্দের বয়স এখন ১৯। দুজন জানিয়েছেন, সাধারণ মোবাইল চার্জারের চেয়ে ২০ শতাংশ কম সময়ে চার্জ হবে এই ওয়াকিং চার্জার। এর ব্যবহার সম্পর্কে তারা জানিয়েছেন, ইলেকট্রোম্যাগনেটিক ইনডাকশন পদ্ধতিতে কাজ করে এই যন্ত্র।

কী ভাবে কাজ করে এই চার্জার?

ইলেকট্রোম্যাগনেটিক ইনডাকশন পদ্ধতিতে কাজ করে এই যন্ত্র। চার্জারের একটি অংশ ডায়নামা এবং অন্য অংশ বাফার। যন্ত্রটা রাখা হয় ঠিক গোড়ালির নিচে। হাঁটা শুরু হলে গোড়ালিতে চাপ পড়ে। গোড়ালির এই চাপ থেকে শক্তি উৎপন্ন হয়। সেই শক্তি ডায়নামা ঘোরাতে সাহায্য করে।  ডায়নামা ঘোরার সঙ্গে সঙ্গে বৈদ্যুতিক শক্তি তৈরি হয়। এই বিদ্যুৎ দিয়েই চার্জ হবে মোবাইল ফোন।

খরচ

এরকম একটা চার্জার বানাতে প্রাথমিক ভাবে খরচ হয়েছে ২০০০ টাকা। তবে যখন এক সঙ্গে অনেকগুলো চার্জার বানানো শুরু হবে, তৈরির খরচ অনেকটাই কমে যাবে। বর্তমানে যে চার্জার তারা বানিয়েছেন, তার আকারটাও বেশ বড়। পায়ে পরতে যাতে কোনও অসুবিধা না হয়, সেটাও খতিয়ে দেখছেন তারা। আর এক থেকে দুই বছরের মধ্যে তা বাজারে চলে আসবে, বলেও জানিয়েছেন তারা।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
error: আপনি নিউজ চুরি করছেন, চুরি করতে পারবেন না !!!!!!