fbpx
শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২০, ০৪:০২ অপরাহ্ন
Logo
সংবাদ শিরোনাম ::
রাজবাড়ীতে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে লেখা বই পুরস্কার হিসেবে পেল ছাত্রীরা মুজিববর্ষকে স্মরণীয় করে রাখতে আরো ভালো ফলাফল করতে হবে —জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম গোয়ালন্দে মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীর যাত্রা বিরতি॥জনতার ভিড় নবনির্মিত ফরিদপুর-ভাঙ্গা ও পাবনা-ঢালার চর রেলপথ পরিদর্শনে মন্ত্রী আসছেন আজ দৈনিক সংগ্রাম পত্রিকার সরকারী মিডিয়া তালিকাভুক্তি বাতিল পাংশায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ভেজাল গুড় কারখানার মালিকের জেল গোয়ালন্দে অসময়ে পদ্মার ভাঙ্গনে নদীগর্ভে বিলীন হচ্ছে ফসলী জমি পেঁয়াজ চাষে ব্যস্ত সময় পার করছে বালিয়াকান্দির কৃষকরা এএসপি পাংশা সার্কেলের সাথে ব্যাংক কর্মকর্তাদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ফরিদপুরে নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যবসায়ীর জেল-জরিমানা

রাজবাড়ীতে শীত ও কুয়াশার কারণে জনজীবনে দুর্ভোগ॥বিপাকে হতদরিদ্র ছিন্নমূল মানুষ

  • আপডেট সময় শনিবার, ২১ ডিসেম্বর, ২০১৯

॥স্টাফ রিপোর্টার॥ রাজবাড়ীসহ সারাদেশে শীতের দাপট চলছে। উত্তরের জেলা চুয়াডাঙ্গা, যশোর ও রাজশাহীতে চলছে মৌসুমের প্রথম শৈত্য প্রবাহ। ওই অঞ্চলে চলছে মৃদু শৈত্য প্রবাহ।
রাজবাড়ীসহ সারাদেশে গত বুধবার রাত থেকে তীব্র শীত অনুভূত হচ্ছে। হিমেল বাতাসের সঙ্গে যোগ হয়েছে কুয়াশার দাপটও। গত বৃহস্পতিবার থেকে শীত এবং কুয়াশার কারণে জনজীবনে নেমে এসেছে দুর্ভোগ। স্থবির হয়ে পড়েছে জনজীবন।
এদিকে শীতজনিত রোগের প্রাদুর্ভাব বাড়ছে। বিশেষত শিশু ও বয়োজ্যেষ্ঠরা বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে বেশি। হাসপাতালগুলোতে রোগীর ভিড় বাড়ছে। গরম কাপড় না থাকায় শীতের কারণে হতদরিদ্র মানুষকে খড়কুটা জ্বালিয়ে শীত নিবারণ করতে দেখা যায়।
এদিকে শীতের তীব্রতা বৃদ্ধির সাথে সাথে পুরনো কাপড়ের দোকানে ভিড় বাড়ছে। দুই দিন ধরে কনকনে শীত আর ঘন কুয়াশা যেন পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। তবে রাজবাড়ীতে হতদরিদ্র ছিন্নমূল মানুষের মাঝে সরকারী বা বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে শীতবস্ত্র বিতরণ শুরু করা হয়নি।
শীতের প্রভাব পড়েছে নিত্যপণ্যের বাজারেও। কুয়াশায় যানবাহন চলাচলে অসুবিধা হওয়ায় রাজধানীর বাজারের তরিতরকারি ও শাকসবজিসহ প্রতিটি নিত্যপণ্যের দাম কিছুটা বেড়েছে। তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে বাজার আবারো স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসবে।
ঘন কুয়াশার কারণে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ৭ঘন্টা বন্ধ ফেরী চলাচল রেখেছিল কর্তৃপক্ষ। গত ১৯শে ডিসেম্বর রাত সাড়ে ১০টা থেকে গতকাল ২০শে ডিসেম্বর ভোর সাড়ে ৫টা পর্যন্ত ফেরী চলাচল বন্ধ থাকার সময় মাঝ নদীতে ৪টি ফেরী আটকে পড়ে। এছাড়া দৌলতদিয়া ঘাট থেকে কয়েক কিলোমিটার জুড়ে বিপুল সংখ্যক যানবাহন আটকে পড়ে। এতে আটকে পড়া ফেরী ও যানবাহনের চালক-শ্রমিক ও যাত্রীদের দুর্ভোগ পোহাতে হয়।
আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, চলতি মাসের শেষ দিকে অর্থাৎ ২৮ ও ২৯শে ডিসেম্বর থেকে তাপমাত্রা আবারো কমতে থাকবে এবং আগামী মাসের প্রথম দিকে দেশের উপর দিয়ে আরেকটি মৃদু থেকে মাঝারি শৈত্য প্রবাহ বয়ে যেতে পারে।
গতকাল শুক্রবার দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে চুয়াডাঙ্গায় ৮ দশমিক ৪ ডিগ্রী সেলসিয়াস, যশোরে ৯ ডিগ্রী সেলসিয়াস ও রাজশাহীতে ৯ দশমিক ৮ ডিগ্রী সেলসিয়াস। এ ছাড়া গতকাল শুক্রবার ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৩ দশমিক ৪ ডিগ্রী সেলসিয়াস এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ১৬ দশমিক ২ ডিগ্রী সেলসিয়াস।
মধ্য রাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে বলে আবহাওয়া অধিদফতর জানায়।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
error: আপনি নিউজ চুরি করছেন, চুরি করতে পারবেন না !!!!!!