বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০৯:২০ পূর্বাহ্ন
Logo
সংবাদ শিরোনাম ::
লম্পট তারিকুলের বিচার ও মা’কে ফিরে পেতে চায় প্রতিবন্ধী সন্তানরা॥ডিসির নিকট স্মারকলিপি প্রদান বালিয়াকান্দিতে বাজারে পেঁয়াজের দাম মনিটরিং করলেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব তুরস্কের বিরুদ্ধে এবার যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা পাংশায় দুইটি সংস্থা পরিদর্শন করলেন মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক পাংশার হাবাসপুরে বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস পালিত জেন্ডার ভিত্তিক সহিংসতা প্রতিরোধে পুরুষদের দায়িত্ব-ভূমিকা শীর্ষক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত কালুখালীতে জব্দকৃত আড়াই মণ ইলিশ মাছ এতিমখানায় বিতরণ দলীয় সমর্থক আবু ডাক্তারের মৃত্যুতে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামীলীগের শোক রাজবাড়ীতে বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস ও স্যানিটেশন মাস উপলক্ষে র‌্যালী-হাত ধোয়া প্রদর্শনী ও আলোচনা সভা রাজবাড়ীতে বিশ্ব সাদা ছড়ি নিরাপত্তা দিবস পালিত

বালিয়াকান্দিতে কলা চাষে আগ্রহী হচ্ছেন কৃষকরা

  • আপডেট সময় শুক্রবার, ১৭ মার্চ, ২০১৭
SAMSUNG CAMERA PICTURES

॥দেবাশীষ বিশ্বাস॥ চলতি বছর রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলায় রেকর্ড পরিমান জমিতে কলা চাষ হয়েছে। ধান, পাট, আলু, মরিচের পাশাপাশি দিন দিন কলা চাষে আগ্রহী হচ্ছেন এ অঞ্চলের কৃষকরা।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সুত্রে জানাগেছে, এ উপজেলায় প্রায় ১০০ হেক্টর জমিতে কলা চাষ হয়েছে। চারা রোপনের ৯ থেকে ১১ মাসের মাথায় কলা বিক্রির উপযোগী হয়। একর প্রতি ১২০০ চারা রোপন করা যায়, পরিচর্যাসহ এতে খরচ হয় প্রায় ১লক্ষ টাকা। কলা বিক্রি হয় প্রায় ৩লক্ষ টাকার। একবার কলা চাষ শুরু করলে ৫বার ফসল পাওয়া যায়। এ উপজেলায় কাঁচাকলা, সবরি কলা এবং মদনা কলা-এই তিন জাতের কলা চাষ করেন কৃষকরা। তবে কাঁচা কলার উৎপাদন বেশী।
কলা চাষী মাহাতাব শেখ জানান, ২৫ শতাংশ জমিতে ২৫০ থেকে ৩০০ গাছ রোপন করা হয়ে থাকে। যেখান থেকে আমরা ৩৫ হাজার টাকার মতো পেয়ে থাকি। খরচ প্রসঙ্গে বলেন, আর্থিক খরচ কম। শুধুমাত্র দুইবার সার এবং একবার সেচ দিতে হয়।
আরেক কৃষক মোস্তফা শেখ বলেন, কলা রোপন করেল সবরি কলা ৩ বছর থাকে, কাঁচা কলা ৭-৮বছর থাকে, মদনা কলা থাকে প্রায় ১০ বছর। তিনি বলেন ,কলা চাষে খরচ কম কিন্তু লাভ বেশি। তাই এখানে কলা চাষ দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।
এ উপজেলার কলা রাজধানী ঢাকা শহরসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় বিক্রি হচ্ছে। কৃষকরা জানান, কলার ফুল বের হবার সাথে সাথে পাইকারী বিক্রেতারা বাগান ক্রয় করে থাকে। এই উপজেলা থেকে সপ্তাহে ১৫ থেকে ২০টি ট্রাকভর্তি কলা ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্রি হয়ে থাকে। কলা বিক্রি করে অর্থের পাশাপাশি কলা গাছ গরুর খাদ্য এবং কলার শুকনা পাতা জ্বালানি হিসাবে ব্যবহার হয়ে থাকে বলে জানিয়েছে কৃষকরা।
কলা চাষ নিয়ে বালিয়াকান্দি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ সাখাওয়াত হোসেন বলেন, এ অঞ্চলের মাটি উঁচু, চাষে ঝুঁকি কম এবং বিক্রয়ের সুবিধার জন্য কলা চাষে কৃষকের আগ্রহ বৃদ্ধি পাচ্ছে।
তিনি আরো জানান, কলা চাষে আমরা কৃষককে বিভিন্ন ধরণের পরামর্শ প্রদান করে থাকি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
error: আপনি নিউজ চুরি করছেন, চুরি করতে পারবেন না !!!!!!